পিংক ফ্লয়েডের গান ‘ব্রেইন ডেমেজ’

img

পিংক ফ্লয়েড ব্যান্ড দলের ‘ব্রেইন ডেমেজ’ গানটি Roger Waters তাদের একজন ফাউন্ডার মেম্বার Syd Barrett  কে নিয়ে লিখেন। Syd Barrett ছিলেন পিংক ফ্লয়েড ব্যান্ডের লিড সিঙ্গার ও গীটারিস্ট। দলের নামকরনও করেন তিনি। পিংক ফ্লয়েডের বেশিরভাগ গান তাঁরই লিখা।

“ব্রেইন ডেমেজ”

খ্যাপা একটা ঘাসে বইসে রইছে
হট্ট একটা ঘাসের উপ্রে বইসা আছে।
সাপ-লুডু খেলা আর ডেইজি ফুলের টায়রা নিয়ে ভাবতেছে
আর হাসতেছে।
খ্যাপাদের পথ থেইকা ঘাসে নামতে হয়
হলের ভিতরে উন্মাদ একটা হাজির
সব হট্টের দল আস্তানায় হাজির।
দলা-মোচড়া করা কাগজ ফ্লোরতলে শুইয়া রইছে
আর প্রত্যুষে
হকার-বয় আরো পেপার নিয়া আসে।
এবং বাঁধ ভাইঙ্গা যদি আমরা শতবছর পার হইয়া যাই
আর পর্বতের উপ্রে যদি মাথা গুজারও ঠাঁই নাই
আর কূটাভাসে মস্তিষ্ক যদি বিস্ফোরিত হয়
অমাবস্যার কালোরূপের সাথেই তো মোলাকাত তখন!
উন্মাদ একটা আমার মাথার ভিত্রে নড়তেছে
পাগলা একটা আমার মাথার ভিতরে
অস্ত্রপচারের ছুরিই চেঞ্জের হোতা
স্যানাটোরিয়াম আমারে আবার সাজাই দাও প্লিজ।
মাথার ভিতরে আউলাইয়া
সেলাই কইরা দেয়া হইছে
মাইরি এখন এইটা আমি না আর!
মেঘ যদি গর্জে-গুমরে উঠে, 
আর সেই বজ্র-নিনাদ যদি আমার কান ফাটাই দেয়
তার চেয়েও তারস্বরে যদি আমি চিল্লাই
কিন্তু কেউ না শুনে তবুও
আর কোন ব্যান্ডদল যদি স্টেজে ভিন্ন সুর বাজানো শুরু দেয়
অমাবস্যার কালোরূপের সাথেই তার মোলাকাত!

পিংক ফ্লয়েড ব্যান্ড থেকে Syd Barrett  এর ছিটকে পড়া একটি কালো অধ্যায়ের নাম। হ্যালুসিনেশন তৈরি করে এমন ড্রাগ অতিমাত্রায় গ্রহনের কারণে syd barrett ধীরে ধীরে পিংক ফ্লয়েড থেকে ড্রপ আউট হয়ে পড়েন বলে বলা হয়। ধারণা করা হয় তিনি মাত্রাতিরিক্ত পরিমানে এলএসডি (Lysergic Acid Diethylamide) নিতেন। LSD মানুষের মনের সচেতন চিন্তাকে বদলে দেয় এবং পারিপার্শ্বিকতার সাপেক্ষে অনুভব ও উপলব্ধিকে একটা ঘোর লাগা অবস্থার ভিতর নিয়ে যায়। LSD মানুষের সামনে থাকা সব ইমেজ ও অনুভূতিকে এমনভাবে রিপ্রেজেন্ট করে যা তার মধ্যে সব অদ্ভুত বিভ্রম তৈরি করে। এই ড্রাগের প্রভাবে সে যা বাস্তবে দেখে তা আসলে অবাস্তব ইমেজ। এলএসডি মূলত অনেকে স্পিরিচুয়াল এক্সপিরিয়ান্সকে ত্বরান্বিত করতে গ্রহন করে থাকেন। অনেকে দাবি করেন, এলএসডি নেয়ার পর বৃহৎ-আত্মার সাথে কসমিক মিলনের স্বাদ পাওয়া যায়; আত্মা থেকে দেহ পৃথক হওয়ার অনুভূতি হয়।

অতিমাত্রায় এলএসডি নামক সাইকোডেলিক ড্রাগ নেয়ার কারণে Syd Barrett এর আচরণ ড্রামাটিকভাবে পরিবর্তন হতে থাকে। স্টেজ পারফর্মেন্সের  সময় তিনি কখনো কোন একটি সুরই কেবল ক্রমাগত বাজাতে থাকতেন, আবার কখনো কোন সুরই বাজাতেন না, কেবল ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থাকতেন!

সান ফ্রান্সিসকো’র একটি শো’তে ‘Intersteller Overdrive’ পারফর্ম করার সময় স্টেজে Syd Barrett তার গীটারের সুরকে হঠাৎ খুব আসতে আসতে বেসুরো করে বন্ধ করে দিতে শুরু করেছিলেন। ব্যান্ডের অন্যান্য সদস্যরা এই অনাকাংখিত অবস্থায় আতংকিত হয়ে পড়লেন। কিন্তু উপস্থিত দর্শকরা এটাকে গানেরদলের ইচ্ছাকৃত পারফর্মেন্স ভেবেছিলেন এবং এই অদ্ভুদ সুর-বেসুরের খেলায় আনন্দ পাচ্ছিলেন।

১৯৬৭ সালের শেষদিকে আরেকটি পারফর্মেন্সে syd Barrett ঘুমের ট্যাবলেট গুড়ি করে তার সাথে মাথার হেয়ার-জেলের পুরো টিউব মিশিয়ে মাথায় মেখে ফেলেন। পারফর্মেন্সের সময় স্টেজের লাইটের তাপে জেল গলে গিয়ে বেয়ে বেয়ে পড়তে লাগল। সেদিন তাঁকে অর্ধ্ব-গলিত জলন্ত মোমের মতনই মনে হয়েছিল।

পিংক ফ্লয়েডের জন্যে লিখা তার শেষ গানটি ছিল  ‘Have you got it yet?’. প্রথমবার যখন তিনি তার ব্যান্ড সদস্যদের গানটি গেয়ে শুনান বেশ সহজ গানই মনে হয়েছিল সবার। কিন্তু অল্প পরেই গানটা আয়ত্তে আনা আর সম্ভব হচ্ছিল না কারোরই। কারণ কিছুক্ষন পর পর Syd Barrett গানটির এরেঞ্জমেন্ট বদলে ফেলছিলেন আর সকৌতুক গলায় গাচ্ছিলেন ‘Have you got it yet?’ এভাবেই দিনের পর দিন Syd Barrett নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছিলেন। Syd Barrett এর এই উন্মাদ অবস্থা নিয়ে Roger Waters এর লিখা গান ‘ব্রেইন ডেমেজ’ : 

"Brain Damage"

The lunatic is on the grass
The lunatic is on the grass
Remembering games and daisy chains and laughs
Got to keep the loonies on the path
The lunatic is in the hall
The lunatics are in my hall
The paper holds their folded faces to the floor
And every day the paper boy brings more
And if the dam breaks open many years too soon
And if there is no room upon the hill
And if your head explodes with dark forbodings too
I'll see you on the dark side of the moon
The lunatic is in my head
The lunatic is in my head
You raise the blade, you make the change
You re-arrange me 'till I'm sane
You lock the door
And throw away the key
There's someone in my head but it's not me.
And if the cloud bursts, thunder in your ear
You shout and no one seems to hear
And if the band you're in starts playing different tunes
I'll see you on the dark side of the moon

"I can't think of anything to say except...
I think it's marvellous! HaHaHa!"

"You raise the blade, you make the change" এই লাইন দিয়ে মূলত ‘Frontal Lobotomies’ কে বুঝানো হয়েছে। ‘Frontal Lobotomies’ একটি নিউরোসার্জিকেল পদ্ধতি, যে প্রসেসে ব্রেইনের সামনের অংশের ফ্রন্টাল লোবে অপারেশন করা হয়। এটা সাধারণত মস্তিষ্ক বিকৃতি ঘটলে করা হয়।

"And if the band you're in starts playing different tunes" দিয়ে স্টেজে Syd Barrett এর ভূল সুর বাজানোর বিষয়টাকে রেফার করা হয়েছে।

অনেকে মনে করেন "The lunatic is on the grass" দিয়ে মারিজুয়ানাকে বুঝানো হয়েছে। আসলে এই লাইন দিয়ে মূলত Syd Barrett এর পার্কে লিখা থাকা ‘রাস্তা থেকে ঘাসে নামবেন না’ আইনকে অমান্য করে পার্কের ঘাসে বসে থাকাকে বুঝানো হয়েছে।
এভাবেই পিংক ফ্লয়েডের ‘ব্রেইন ডেমেজ’ গানটা মূলত ইনস্যানিটির গান, পাগলামির গান, হ্যালুসিনেশনের গান। 


Arts Feature Desk

ফিচার