প্রোস্ট্রেটের সমস্যায় টামসুলোসিন

img

পুরুষের প্রোস্ট্রেট গ্ল্যান্ডের ফুলায় (Benign Prostatic Hyperplasia-BPH) বহুল ব্যবহৃত ঔষধের মধ্যে একটি হল টামসুলোসিন। টামসুলোসিন প্রোস্ট্রেট গ্রন্থিকে সংকোচিত না করে, বরং প্রোস্ট্রেট গ্রন্থি ও মূত্রথলির মাংসপেশীকে রিল্যাক্স করে দেয়। ফলে প্রোস্ট্রেট গ্রন্থির ফুলাজনিত কারণে রোগীর জটিলতাসমূহ যেমন- প্রস্রাবের শুরুতে গতি আটকে যাওয়া বা একদম ফোঁটায় ফোঁটায় দূর্বল গতিতে প্রস্রাব বের হওয়া, ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ পাওয়া, প্রস্রাব আটকানোর ক্ষমতা হ্রাস পাওয়া ইত্যাদি উপসর্গ কমায়। টামসুলোসিন ঔষধের মধ্যে রয়েছে Maxrin,  Mictrol, Prostacin, Sasolin, Tamlosin, Urinom, Uroflo, Urolosin, Uromax, Uropass, Urosin ইত্যাদি।

এছাড়া টামসুলোসিন কিডনীতে পাথরের চিকিৎসায়ও ব্যবহৃত হয়। টামসুলোসিন কিডনীর পাথরকে প্রস্রাবের সাথে বের করে দিতে সহায়তা করে। আবার মহিলাদের মূত্রথলির সমস্যাও টামসুলোসিন ব্যবহার করা হয়।

যেসকল রোগী প্রোস্ট্রেট গ্ল্যান্ডের ফুলার সাথে অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশনে (Orthostatic Hypotension) আক্রান্ত বা যাদের প্রস্রাব করার সময় মূর্ছা যাওয়ার ইতিহাস (Micturation Syncope) রয়েছে তারা টামসুলোসিন ঔষধ সেবনে সাবধান হওয়া জরুরী। অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশনে শোয়া বা বসা হতে হঠাৎ দাঁড়ালে পেশেন্টের রক্তচাপ আকস্মিক কমে গিয়ে জ্ঞান হারাতে পারে।

টামসুলোসিন সাধারণত রক্তনালী, নরম মাংসপেশী ও কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের আলফা-১-এড্রেনার্জিক রিসেপ্টরকে ব্লক করে দেয়। ফলে নরম মাংসপেশী এবং রক্তনালী প্রসারিত হয়ে পড়ে। এতে করে পুরো শরীরের ভাস্কুলার রেসিসট্যান্স হ্রাস পায়। ফলশ্রুতিতে, নাটকীয়ভাবে রক্তচাপ কমে যায় এবং অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন হয়, এমনকি রোগী তাৎক্ষণিক জ্ঞান হারাতে পারে বা মাথা ঘুরানো, মাথা হালকা লাগা, বুক ধরফড় করার  মত উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

টামসুলোসিন এবং সিমোটিডিন ঔষধ একই সাথে সেবন না করাই উত্তম, বিশেষ করে যখন টামসুলোসিনের মাত্রা 0.4 mg চেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। সিমোটিডিন CYP2D6 নামক এনজাইমকে বাধা দেয়, কিন্তু CYP2D6 এনজাইম আবার টামসুলোসিন মেটাবলিজমে অত্যাবশ্যক। ফলে শরীরে টামসুলোসিনের কার্যকরিতা বৃদ্ধি পায়। এছাড়া টামসুলোসিন এবং ওয়ারফেরিন একইসাথে সেবণ না করাই উত্তম, কেননা ওয়ারফেরিন টামসুলোসিনের ইলেমিনেশন রেট বাড়িয়ে দেয়।
টামসুলোসিন ঔষধ সেবনকালীন আঙ্গুরের রস খাওয়া উচিত নয়। কেননা আঙ্গুরের রস রক্তে টামসুলোসিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। ফলে ঔষধজনিত সাইড-ইফেক্ট যেমন- মাথা ঘুরানো, অস্বস্থি লাগা ইত্যাদি হতে পারে।


Thoufiqul Alam Riaz

তৌফিকুল আলম রিয়াজ

ফার্মাসিস্ট

বাংলাদেশ ফার্মেসী কাউন্সিল কর্তৃক রেজিস্টার্ড ফার্মাসিস্ট (রেজি নং-A-10585)। ফার্মাসিউটিক্যাল প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্টে কাজ করছেন। করছেন সেল বায়োলজি নিয়ে গবেষণা। বেশ কিছু গবেষনা পত্র পাবলিশ হয়েছে আন্তর্জাতিক জার্নালে।