ঈশিতা মিত্র তন্বী’র ইন্টারভিউ

img

ড্রয়িং, গ্রাফিক, অবজেক্ট এবং কোলাজ নিয়ে ঈশিতা মিত্র তন্বী’র একক একজিবিশন ‘হাইব্রিডিটি’ চলছে কলাকেন্দ্রে। আসুন পড়ি ঈশিতা মিত্র তন্বী’র কাজ ও শিল্প চিন্তা নিয়ে শিল্পীর ইন্টারভিউ।

ইপ্রকাশ আর্টস: কলাকেন্দ্রে চলছে আপনার একজিবিশন ‘হাইব্রিডিটি’। চলবে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত। একজিবিশনটি নিয়ে কিছু বলুন।

ঈশিতা মিত্র তন্বী: হাইব্রিডিটি- আমার প্রথম একক প্রদর্শনী। এই প্রদর্শনীর কিউরেটর হচ্ছেন শিল্পী ওয়াকিলুর রহমান।প্রদর্শনীটি কলাকেন্দ্রে চলবে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত। আমি ধন্যবাদ জানাই শিল্পী ওয়াকিলুর রহমানকে আমাকে এই সুযোগটা দেবার জন্য। হাইব্রিডিটি - প্রদর্শনীটি আমার শিল্পচর্চাকে আরো এক ধাপ সামনে নিয়ে গেলো।

ইপ্রকাশ আর্টস: একজিবিশনের নাম ‘হাইব্রিডিটি’ কেন রেখেছেন?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: হাইব্রিডিটি প্রদর্শনীর নামটি রেখেছেন কিউরেটর শিল্পী ওয়াকিলুর রহমান। হাইব্রিডিটি মানে হল মিশ্র। নতুন প্রজন্ম / নতুন কালচার এর মধ্যে সবকিছুকে একত্র করার একটা প্রবনতা দেখা যায়। আর আমার কাজগুলো নতুন প্রজন্ম / নতুন কালচার এর চিন্তাকে প্রতিনিধিত্ব করে,তাই প্রদর্শনীটির নাম হাইব্রিডিটি।

ইপ্রকাশ আর্টস: কয়টি কাজ নিয়ে এই একজিবিশন। কাজগুলো কখনকার করা?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: প্রিন্ট, স্কাপচার, ড্রইং, কোলাজ সব মিলে প্রায় ২১ টি কাজ নিয়ে আমার হাইব্রিডিটি প্রদর্শনী। নতুন পুরাতন সব কাজ নিয়েই এই প্রদর্শনী। ২০১২ সাল থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে কাজগুলো করা।

ইপ্রকাশ আর্টস: আপনার কাজে ইন্ডিয়ান মিথ আসে। আই মিন হিন্দু মিথ। বিশেষ করে কালী। কোন বিশেষ কারণ আছে?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: আমি আসলে আমার কাজ এর মধ্য দিয়ে আইকনিক ফর্মকে তার আইডিওলজি ভেঙ্গে নতুন একটা ফর্ম দেবার চেষ্টা করি। তাই এখানে কালী আমার কাছে একটি আইকনিক ফর্ম,এছাড়া আর কিছু না।

ইপ্রকাশ আর্টস: আপনি অনেকগুলো মেটেরিয়েলকে এসেমবেল করেন একসাথে। মেটেরিয়েলগুলা কীভাবে সিলেক্ট করেন?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: আমি মূলত ফাউন্ড অবজেক্ট নিয়ে কাজ করি।আমার চারপাশের অবজেক্ট, অন্যের ফেলে দেওয়া অবজেক্ট,আবার সচেতন ভাবে কেনা অবজেক্ট সব কিছু নিয়েই আমি কাজ করি।

ইপ্রকাশ আর্টস: আপনার কাজ কালারফুল অনেক। কালার জিনিসটাকে কীভাবে নেন? কালারের সাথে ভূগোল,  ক্লাস,  সাইকোলজি সবকিছুর একটা রিলেশন আছে। আপনি কীভাবে দেখেন?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: রং আমার কাছে আমার কাজের একটি মেটেরিয়াল। তবে কিছু কিছু রং আমাকে একটু বেশিই প্রভাবিত করে।

ইপ্রকাশ আর্টস: সম্প্রতি শেষ হওয়া 'তাসের দেশ' প্রর্দশনীতে আপনিও যুক্ত ছিলেন। অভিজ্ঞতা বলুন।

ঈশিতা মিত্র তন্বী: তাসের দেশ এর অভিজ্ঞতা খুব ভালো,যদিও আমি আমার চাকরীর কারনে বেশি সময় দিতে পারিনি কিন্তু অনেকের মুখে আমার কাজ ও প্রর্দশনীর প্রশংসা শুনে ভাল লেগেছে।

ইপ্রকাশ আর্টস: ওই রকম স্পেসে আগে এরকম প্রর্দশনীর অভিজ্ঞতা কি আছে?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: ওই রকম স্পেস বলতে ২০১২ সালে তেজগার একটি কোক ফেক্টরিতে শিল্পী রফিকুল ইসলাম শুভ’র কিউরেটিং এ Only God Can Judge Me প্রর্দশনী টি করেছিলাম। যা বাংলাদেশের আর্টে সম্পূর্ণ নতুন ধারার আর্ট ইভেন্ট ছিলো। এই ইভেন্ট এর অভিজ্ঞতা এক কথায় অসাধারন। আমি মনে করি প্রর্দশনীতে অংশ গ্রহণ আমার জীবনের বড় পাওয়া। ধন্যবাদ ogcjm আর্ট এবং ogcjm আর্টিষ্ট।

ইপ্রকাশ আর্টস:  ওই রকম একটা স্পেস। মাজারের সাথে। তার উপর গতানুগতিক না। কীভাবে নিয়েছিলেন?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: ভালো লেগেছে কিউরেটর এর চিন্তা।

ইপ্রকাশ আর্টস: বাংলাদেশের সচরাচর নারী শিল্পীদের চেয়ে আপনার কাজ অনেক দিক থেকেই আলাদা। মোটাদাগে, সচরাচর নারী শিল্পীরা যে বাস্তবতার ভেতর দিয়ে যান, তার সাথে শিল্পীর অভিজ্ঞতাটা তুলে ধরেন। আপনি ওই রকম নন। আপনার ভাবনা কী এ নিয়ে?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: আমি আসলে আমাকে শুধু নারী শিল্পী হিসেবে চিন্তা করি না।আমি একজন শিল্পী,তবে হ্যা যেহেতু আমি নারী তাই স¦য়ংক্রিয়ভাবেই আমার কাজের মেটেরিয়ালএ নারী চরিত্র চলে আসে। আমি মূলত আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে কাজ করি।

ইপ্রকাশ আর্টস: ধর্মচিন্তার ইউরোপ প্রভাবিত কিছু দৃষ্টিভঙ্গি আমাদের মধ্যে চালু আছে। আপনি যেহেতু দেব- দেবীদের আপনার কাজের মধ্য দিয়ে রিপ্রেজেন্ট করেন। তাই আপনার ধর্মচিন্তাও গুরুত্বপূর্ণ। বোধহয় ধর্মচিন্তার সাথে শিল্পচিন্তার দুরত্বও নাই তেমন। আপনার দিক থেকে বিষয়টা কেমন?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: আমি আসলে দেব-দেবী / ধর্মচিন্তা থেকে কাজ করি না। আমি আইকনিক ফর্ম নিয়ে চিন্তা করি।

ইপ্রকাশ আর্টস: তাসের দেশের কিউরেটিং নিয়ে কাইন্ডলি কিছু বলুন। অতীশ সাহা। তরুণ কিউরেটর। প্রথম কিউরেটিংও।

ঈশিতা মিত্র তন্বী: এত তরুণ বয়সে এত বড় পরিসরে ইভেন্ট করা সত্যিই বিশাল ব্যাপার। অতীশ সাহার কিউরেটিং ভালো ছিলো,আমি আশা করি অতীশ সাহার কিউরেটিং এ সামনে আরো প্রদর্শনী দেখতে পাবো।

ইপ্রকাশ আর্টস: আপনার কাছে আর্ট মানে কি?

ঈশিতা মিত্র তন্বী: আমার কাছে লাইফ টাই হলো আর্ট।

ইপ্রকাশ আর্টস: এখনকার শিল্পীদের মধ্যে কার কার কাজ ভালো লাগে? 

ঈশিতা মিত্র তন্বী: অনেকের কাজই ভালো লাগে যেমন - শিল্পী রফিকুল ইসলাম শুভ, শিল্পী রনি আহম্মেদ, শিল্পী মোস্তফা জামান, শিল্পী স্বর্ণালী মিত্র রিনি প্রমুখ।


Eprokash Feature

ফিচার

개발 지원 대상